,

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে লেখা খোলা চিঠি

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে খোলা চিঠি লিখেছেনবাংলাদেশ ডিপ্লোমা কৃষিবিদ ফেডারেশন (BDKF) এর কেন্দ্রীয় সমন্বয়কারী ডি. কৃষিবিদ মোহাম্মদ তৌহিদ হাসান।

পাঠকের সুবিধার জন্য খোলা চিঠিটি তুলে ধরা হলো-

“মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে খোলা চিঠি”

বরাবর,
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়
তেজগাঁও, ঢাকা_১২১৫, বাংলাদেশ।

বিষয়: কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের”উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা পদে”বিবাদমান নিয়োগ প্রক্রিয়ার সুষ্ঠু সমাধানের জন্য আবেদন।

জনাব,
বাংলাদেশ ডিপ্লোমা কৃষিবিদ ফেডারেশনের পক্ষ থেকে আপনাকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানাই। আপনাকে ধন্যবাদ জানাই করোনার মতো ভয়াবহ মহামারী কে আপনি দক্ষতা দিয়ে মোকাবেলা করছেন। আপনার নির্দেশ মোতাবেক আমরা ডিপ্লোমা কৃষিবিদরা আমাদের যে যার অবস্থান থেকে কাজ করে যাচ্ছি। আমরা খুব শীঘ্রই করোনার প্রভাব থেকে মুক্তি পাব ইনশাআল্লাহ।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি জানেন যে, দেশের কৃষি ক্ষেত্রে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আসছে। এই কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তাগণ কৃষকের সাথে নিবিড় ভাবে কাজ করার মাধ্যমে বাংলাদেশের কৃষি ক্ষেত্রে বিরাট সাফল্য এনেছেন। উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তাগণ তাদের সাফল্যের স্বীকৃতিস্বরূপ বঙ্গবন্ধু কৃষি পদক সহ আরো অন্যান্য পদক’ এ ভূষিত হয়েছেন।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, দীর্ঘদিন অপেক্ষার পর গত ২৩ শে জানুয়ারি ২০১৮ ইং তারিখে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। এরপর প্রিলিমিনারি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয় ১৭ জুলাই ২০১৯ ইং তারিখে। উল্লেখ্য যে প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারীর সংখ্যা ছিল ২৮ হাজারের অধিক। প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন ১০০৩৯ জন পরীক্ষার্থী।এরপর গত ২৫ শে আগস্ট ২০১৯ ইং তারিখে লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। লিখিত পরীক্ষায় মৌখিক পরীক্ষার জন্য মনোনীত হন ৫১১৪ জন পরীক্ষার্থী। গত ১৮/১২/২০১৯ ইং তারিখ থেকে ১৪/০১/২০২০ তারিখ পর্যন্ত মৌখিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দীর্ঘ প্রায় দুই বছরের নিয়োগ প্রক্রিয়া শেষে, হতাশাজনক চূড়ান্ত ফলাফল প্রকাশ করা হয়। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর এই নিয়োগ-প্রক্রিয়ার পূর্বের নীতিমালা ও জেলা কোটা অনুসরণ না করে, নির্দিষ্ট কিছু জেলাকে অতিরিক্ত সুযোগ দিয়ে একতরফাভাবে চূড়ান্ত ফলাফল প্রকাশ করে। এর পরিপ্রেক্ষিতে মহামান্য হাইকোর্ট এক মাসের জন্য নিয়োগ প্রক্রিয়া স্থগিত করেন।
হে মানবতার মা, আপনি তো বলেছেন”মহামারী করোনাভাইরাসের পর যে দুর্ভিক্ষ দেখা দেবে তার থেকেই একমাত্র কৃষিই মানুষকে বাঁচাতে পারে”
আপনার কৃষিবান্ধব সরকার কৃষিক্ষেত্রে পর্যাপ্ত পরিমাণ বাজেট প্রদান করলেও, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদাসীনতার কারণে নিয়োগ প্রক্রিয়া দীর্ঘ প্রায় দুই বছরেও বাস্তবায়ন সম্ভব হচ্ছে না। হে মমতাময়ী নেত্রী একমাত্র আপনি পারেন এ সমস্যার সুষ্ঠু সমাধান করতে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আপনি আমাদের অভিভাবক, অবিলম্বে লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ৫১১৪ জন পরীক্ষার্থীকে চূড়ান্তভাবে নিয়োগ প্রদান করে, মাঠ পর্যায়ে কৃষি কার্যক্রমের গতিশীলতা আনয়ন করে, দেশের কৃষি খাতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার সুযোগ দিন।

ডি. কৃষিবিদ মোহাম্মদ তৌহিদ হাসান
কেন্দ্রীয় সমন্বয়কারী
বাংলাদেশ ডিপ্লোমা কৃষিবিদ ফেডারেশন (BDKF)



     এই বিভাগের আরো খবর