,

কুষ্টিয়া জেলা ক্রীড়া সংস্থার নির্বাচন, এ্যাড. অনুপ কুমার নন্দী পরিষদ পুর্ণপ্যানেলে বিজয়ী

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, কুষ্টিয়া
কুষ্টিয়া জেলা ক্রীড়া সংস্থার ২০২০-২০২৪ নির্বাচনে কুষ্টিয়া জেলা ক্রীড়া উন্নয়ন পরিষদ নামে এ্যাড. অনুপ কুমার নন্দীর নেতৃত্বাধীন পরিষদ পুর্ণপ্যানেলে জয়ী হয়েছে। শনিবার দিনব্যাপী উৎসবমুখর পরিবেশে নির্বাচনের ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হয় জেলা ক্রীড়া সংস্থার প্যাভিলিয়নে। কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থার মধ্যে দিয়ে ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হয়। জেলার ক্রীড়াবিদ,ক্রীড়া সংগঠক এবং ক্রীড়ামোদীদের উপস্থিতিতে মিলন মেলায় পরিনত হয়েছিল স্টেডিয়াম প্রাঙ্গণ। নির্বাচনে জয়ী হয়ে সাধারন সম্পাদক এ্যাড, অনুপ কুমার নন্দী সকলের সহযোগিতায় জেলার ক্রীড়াঙ্গনকে আরো সামনের দিকে নেয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন। পরাজিত প্যানেলের সাধারন সম্পাদক প্রার্থী আমজাদ আলী খান নব নির্বাচিত সাধারন সম্পাদকসহ নির্বাচিত পরিষদকে অভিনন্দন জানিয়ে ক্রীড়াঙ্গনের উন্নয়নে সর্বাত্বক সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন। নির্বাচনে প্রথমবারের মত ভোট প্রদান করতে এসেছিলেন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক কাজী হাবিবুল বাশার সুমন। সাথে ছিলেন বাংলাদেশ দলের ওপেনার সুমনের সতীর্থ ছানাউর।


এবিষয়ে সুমন জানান প্রথমবারের মত নিজ জেলার ক্রীড়া সংস্থায় ভোট দিতে পেরে নিজেকে অন্যরকম মনে হচ্ছে। তিনি জানান-জেলার ক্রীড়াক্ষেত্র উর্বর। যারা নির্বাচিত হয়ে আসবেন তারা নিশ্চয় ক্রীড়াঙ্গনের জন্য কাজ করে দৃষ্টান্ত রাখবেন। ভোট কেন্দ্রে উপস্থিত হয়ে ভোট দিয়েছেন জেলা প্রশাসক মো. আসলাম হোসেন ও পুলিশ সুপার এস,এম তানভীর আরাফাত।
জেলা প্রশাসক মো. আসলাম হোসেন ডিএসএ‘র নির্বাচনকে কেন্দ্র করে উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করায় সকলকে সাধুবাদ জানিয়ে বলেন, ক্রীড়াঙ্গনের উন্নয়নের ধারবাহিকতায় যারা কাজ করবেন ভোটাররা তাদেরই বেছে নিয়ে জয়যুক্ত করবেন। তিনি বলেন, সকলকে জেলার ক্রীড়াঙ্গনের উন্নয়নে নিবেদিত হয়ে কাজ করতে হবে। জেলার ক্রীড়াঙ্গনের সাফল্যের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে আরো বেশি কর্মসুচী হাতে নিতে হবে।


পুলিশ সুপার এস, এম তানভীর আরাফাত বলেন, উৎসবমুখর পরিবেশে সকলের অংশগ্রহনে ভোট গ্রহনের বিষয়টিই বলে দেয় জেলার ক্রীড়াঙ্গনের মানুষেরা কতটুকু আন্তরিক। ক্রীড়াঙ্গনকে আরো বেশি ব্যস্ত রাখতে নির্বাচিত পরিষদ আরো উদ্যোগী হবেন বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি। তিনি বলেন, যত বেশি ক্রীড়াঙ্গনকে সচল রাখা যাবে তত বেশি যুব সমাজ উপকৃত হবে সেই সাথে জেলার আইনশৃংখলা পরিস্তিতির উন্নতি হবে।

কুষ্টিয়া জেলা ক্রীড়া সংস্থার কার্যনির্বাহী পরিষদের ৩১টি পদ। এর মধ্যে পদাধিকার বলে কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক সভাপতি, কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার ও কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) সহ-সভাপতি এবং কুষ্টিয়া জেলা ক্রীড়া অফিসার সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করে থাকেন। এ নির্বাচনে কুষ্টিয়া জেলা ক্রীড়া উন্নয়ন পরিষদ নামে এ্যাড. অনুপ কুমার নন্দীর নেতৃত্বাধীন প্যানেলে সহ-সভাপতি প্রার্থী জহুরুল হক চৌধুরী রনজু, আলী হাসান মন্টা, মকবুল হোসেন লাবলু ও সেখ সুলতান আহমেদ, যুগ্ম-সম্পাদক প্রার্থী পারভেজ আনোয়ার তনু ও খন্দঃ সাদাত-উল আনাম পলাশ এবং কোষাধ্যক্ষ প্রার্থী লিয়াকত আলী খান বিনা-প্রতিদ্বন্দ্বীতায় নির্বাচিত হয়েছেন।
নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদক পদে এ্যাড. অনুপ কুমার নন্দীর প্রাপ্ত ভোট-৫১। অতিরিক্ত সাধারণ সম্পাদক পদে এ্যাড. মোসাদ্দেক আলী মনি প্রাপ্ত ভোট ৩৯। নির্বাহী সদস্য পদে যথাক্রমেÑ সামসুদ্দিন বিশ্বাস সামু ৪৫ভোট, কাইয়ুম নাজার ৫০ ভোট, খোকন সিরাজুল ইসলাম ৫২ভোট, আনিসুর রহমান আনিস ৫১ ভোট, স্বপন কুমার সাহা শংকর ৫২ ভোট, হাবিবুর রহমান বাপ্পি ৪৩ ভোট, মীর আয়ুব হোসেন ৪৭ভোট, রাশিদুজ্জামান খান (টুটুল) ৫৪ ভোট, সাব্বির কাদেরী সবু ৫০ ভোট, আলমগীর কবির হেলাল ৫৩ ভোট, আতাউর রহমান (মিঠু) ৫৩ ভোট, জাহাঙ্গীর আলম ৫২ ভোট, কাজী এমদাদুল বাশার রিপন ৫৩ভোট ও শেখ কৌশিক আহমেদ ৪৯ ভোট। সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে আল হামরা বেগম ৩৫ ভোট ও আফরোজা আক্তার ডিউ ৫১ ভোট এবং সংরক্ষিত উপজেলা সদস্য পদে আলহাজ্ব শামীমুল ইসলাম ছানা ৪৫ভোট ও মোহাম্মদ আলী নিশান ৪৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।


পরাজিত সাধারন সম্পাদক প্রার্থী আমজাদ আলী খান পেয়েছেন ১৫ভোট। অতিরিক্ত সাধারন সম্পাদক প্রার্থী খন্দকার ইকবাল মাহমুদ পেয়েছেন ২৫ ভোট, নির্বাহী সদস্য পদে পরাজিত প্রার্থীদের মধ্যে সর্বোচ্চ ভোট পান মীর সাইফুল ইসলাম। তিনি পেয়েছেন ৩৪ ভোট। এছাড়া সাইফুল ইসলাম পান্না ২১ ভোট, কাজী সাইদুর রহমান নিশা ২৩ ভোট,কাজী মিজানুর রহমান লিটন ২১ ভোট, হাসেম আলী ২১ ভোট, রেজাউর রহমান ২৮ ভোট এবং মেহেরুন নেছা বিউটি ৩১ ভোট পেয়েছেন। জেলা ক্রীড়া সংস্থার মোট ভোটার ৬৮জন। এদের মধ্যে পৌর মেয়র আনোয়ার আলী এবং সংরক্ষিত মহিলা সদস্য আল হামরা বেগম অসুস্থ্য থাকায় ভোট দিতে আসেননি। ৬৮ ভোটের মধ্যে মোট ৬৬ ভোট পোল হয়েছে। মহিলা সদস্য পদে ২টি ভোট বাতিল হয়েছে বলে জানা যায়। নির্বাচন কমিশনার অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আরিফুজ্জামান সার্বক্ষনিক ভোট কেন্দ্রে উপস্থিত থেকে দায়িত্ব পালন করেন। রিটার্নিং অফিসারের দায়িত্ব পালন করেন ভুমি অধিগ্রহন কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট কানিজ ফাতেমা লিজা। উপস্থিত ছিলেন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট সবুজ হাসান। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) লুৎফুন্নাহার। নির্বাচনকালীন কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছিল। কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা গোলাম মোস্তফার নেতৃত্বে পুলিশ ও আনসার বাহিনীর সদস্যরা নির্বাচনকালীন নিরাপত্তা কাজে নিয়োজিত ছিলেন। সারাদিন ষ্টেডিয়ামে এলাকায় ক্রীাবিদ,ক্রীড়া সংগঠক ক্রীড়ামোদী ও সাংবাদিকদের বিচরণ ছিল লক্ষনীয়। শান্তিপুর্ন পরিবেশে নির্বাচন সম্পন্ন হওয়ায় নির্বাচন কমিশনার অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আরিফুজ্জামান সকল মহলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। তিনি নির্বাচন পরিচালনায় রিটার্নিং অফিসার, পোলিং অফিসার, আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্য,সাংবাদিক, প্রার্থী এবং ভোটারদের সহযোগিতার প্রশংসা করেন।
নির্বাচনে ফলাফল প্রকাশের পর বিজয়ী সাধারন সম্পাদকসহ সকলকে ফুলের মালা দিয়ে বরণ করে নেন ক্রীড়ামোদী ও ক্রীড়া সংগঠকেরা।


     এই বিভাগের আরো খবর