,

শেখ রাসেল হরিপুর সেতুতে জেলা পুলিশের কঠোর নজরদারি

কুষ্টিয়া- কুষ্টিয়া সদর উপজেলার হাটশ হরিপুর ইউনিয়ন বাসীর বহুল প্রত্যাশিত স্বপ্ন শেখ রাসেল হরিপুর কুষ্টিয়া সংযোগ সেতু (টোল ফ্রি) উদ্বোধনের মধ্যে দিয়ে উক্ত এলাকা সহ আশেপাশের প্রায় কয়েক লাখ মানুষদের নির্বিঘ্নে চলাচলের একমাত্র ভরসা এই সেতুটি। ভাগ্য পরিবর্তনের নজির স্হাপন করা হলেও দীর্ঘদিন শেখ রাসেল হরিপুর কুষ্টিয়া সংযোগ সেতুতে একটু প্রাকৃতিক দৃশ্য অবলোকন করা আর চলাচলের জন্য হরিপুরের বিপুলসংখ্যক জনগোষ্ঠীর ভাগ্যেটা জনদুর্ভোগে পরিণত হয়। বখাটে ছেলেদের দৌরাত্ব, দল বেঁধে বেপরোয়া মটর সাইকেল রেসলিং, সেতুর উপর যেখানে সেখানে প্রাইভেট কার, মোটর সাইকেল পার্কিং করায় হরিপুর বাসীর স্বপ্নটা দুঃস্বপ্নে পরিণত হয়েছিলো। যার ফলে সেতুর দুপাশে গাড়ি, মোটর সাইকেল পার্কিং করায় দীর্ঘ যানজট আর সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে দিন মজুর থেকে শুরু করে সকল শ্রেণী পেশার মানুষদের। কোমলমতি শিশু থেকে শুরু করে হাসপাতালে যাওয়া কোন রোগী এই ভোগান্তি থেকে মুক্তি পায়নি। এই জনদুর্ভোগ নিয়ে বিভিন্ন পত্র-পত্রিকা ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশ আলোচিত সমালোচিত হয়। গত ২৮-০৫-২০১৯ইং মঙ্গলবার মাননীয় কুষ্টিয়া জেলা পুলিশ সুপার এস.এম তানভীর আরাফাত নিজ কার্যালয়ে আয়োজিত আসন্ন পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখার পাশাপাশি নানা বিষয়ে গণমাধ্যম কর্মী ও সুশীল সমাজের ব্যক্তিদের নিয়ে এক মত মতবিনিময় সভায় সাধারণ মানুষদের ভোগান্তি নিরসন ও কুষ্টিয়ার আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখার জন্য কুষ্টিয়া জেলা পুলিশকে নানা দিক নির্দেশনা প্রদান করেন। তিনি জানান, কুষ্টিয়ার মানুষদের জান, মাল নিরাপত্তা ঈদ উৎসবে যাতে কোন প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সেদিকে লক্ষ্যে রেখে তিন স্তর নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। সমগ্র কুষ্টিয়া নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে ফেলা হয়েছে। যেসব এলাকায় সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড, মাদক, ছিনতাই হওয়ার প্রবণতা সেসব এলাকায় টহল পুলিশ সহ সাদা পোশাকে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের তৎপরতা বাড়ানো হয়েছে। কোন অপরাধী অপরাধ করে ছাড় পাবে না। সরজমিনে পরিদর্শন করলে দেখা যায়, শহরের বিভিন্ন গুরত্তপূর্ণ পয়েন্টে বিপুল সংখ্যক টহল পুলিশ সদস্যদের সংখ্যা বৃদ্ধি যানজট নিরসন সহ যেকোন অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে চলেছে। এছাড়াও শেখ রাসেল হরিপুর কুষ্টিয়া সংযোগ সেতুতে টহল পুলিশের কঠোর নজরদারিতে কোণঠাসা হয়ে পড়েছে বেপরোয়া মোটর সাইকেল চালকরা। সেতুর উপর মোটর সাইকেল পার্কিং রেখে আড্ডা বাজী বন্ধ হয়েছে। এই উক্ত জনদুর্ভোগ নিরসনে দ্রুত কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করায় সকল শ্রেণী পেশার মানুষদের মাঝে স্বস্তি ফিরে এসেছে। কুষ্টিয়া বাসী সুযোগ্য কুষ্টিয়া জেলা পুলিশ সুপার এস.এম তানভীর আরাফাত কে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।


     এই বিভাগের আরো খবর